ভিন রাজ্যের নদীতে ভাসছে শবদেহ, শঙ্কিত এরাজ্যের মৎস্য ব্যবসায়ীরা

নিউজ দুনিয়া ২৪,ওয়েব ডেস্ক : ভিন রাজ্যের মাছ নিয়ে চিন্তিত এরাজ্যের মৎস্য ব্যবসায়ীরা। উত্তরপ্রদেশ ও বিহারের নদীতে ভেসে যাচ্ছে একের পর এক শবদেহ। নদীতে ভেসে যাওয়া এই দেহ থেকে সংক্রমিত হতে পারে মাছেরা। সতর্কতা হিসেবে কী পদক্ষেপ নেওয়া যায় সেবিষয়ে ব্যবসায়ীরা নিজেদের মধ্যে চালাচ্ছেন আলাপ আলোচনা। রাজ্য মৎস্য দপ্তরের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী অখিল গিরি জানিয়েছেন, গোটা বিষয়টি পর্যালোচনা করতে সোমবার তিনি দপ্তরের আধিকারিকদের সঙ্গে একটি বৈঠকে বসতে চলেছেন।


গঙ্গার মাধ্যমে উত্তরপ্রদেশ ও বিহারের সঙ্গে এরাজ্যের মালদার সম্পর্ক খুবই নিবিড়। রাজ্য প্রশাসনের তরফে ইতিমধ্যেই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, গঙ্গায় ভেসে আসা এই দেহ যদি মালদায় আসে তবে যেন তা জল থেকে তুলে পরীক্ষা করার পর করোনা বিধি মেনে সতর্কতার সঙ্গে সৎকার করা হয়। তবে আশার কথা, এই দুই রাজ্যের সঙ্গে গঙ্গার মাধ্যমে মালদার সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ হলেও কলকাতার মাছ ব্যবসায়ীদের সম্পর্ক সেরকম একটা নিবিড় নয়।

কিন্তু তাতেও দুশ্চিন্তামুক্ত নয় রাজ্যের মৎস্য ব্যবসায়ীরা। হাওড়া পাইকারি মাছ বাজারের সম্পাদক সইদ আনোয়ার জানিয়েছেন, মাছ তো কোনও নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে ঘোরাঘুরি করেনা। সে তার নিজের খেয়ালে এক নদী থেকে অন্য নদীতে যায়। ফলে বিষয়টি নিয়ে আমরাও চিন্তিত। যদিও উত্তরপ্রদেশ থেকে এরাজ্যে চালানি মাছ কমই ঢোকে। কিন্তু কিছুতো আসে। আবার এটাও ঠিক যে মাছটা ধরা পড়ছে তার গায়ে লেখা থাকছেনা সে ধরা পড়ার আগে কোন কোন নদীতে ঘুরেছে। যদিও এখনও পর্যন্ত মাছের সংক্রমণের কোনও খবর আমাদের কাছে নেই। কিন্তু আমরাও বিষয়টি নিয়ে চিন্তায় আছি।


রাজ্যে মাছের আরেকটি বড় পাইকারি বাজার হল শিয়ালদা। শিয়ালদা পাইকারি মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক অধীরকুমার বিশ্বাস বলেন, শিয়ালদায় প্রতিদিন অন্য রাজ্য থেকে আসে ৪০ টনের কাছাকাছি মাছ। যার সিংহভাগই আসে অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে। বাকি যা মাছ বিক্রি হয় তার গোটাটাই এরাজ্যের নদী বা পুকুরের মাছ।

তবে নদীতে এই শবদেহ ভাসার খবরটা পেয়ে আমরাও উদ্বিগ্ন। চিন্তা করছি আগামী দিনে বাইরে থেকে কী কী মাছ আনা হবে। বিষয়টি নিয়ে কলকাতা পুরসভার অন্যতম পুরপ্রশাসক অতীন ঘোষ জানিয়েছেন, বিষয়টি শুনলাম। খোঁজ নিয়ে দেখব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *