মালদহের বুলবুলচন্ডীর মদনমোহন মন্দিরে আম মহোৎসব অনুষ্ঠানে মাতোয়ারা ভক্তবৃন্দ

  দিব্যেন্দু বসাক, বালুরঘাট:  আমরা জেনে এসেছি আম মহোৎসব অনুষ্ঠানের কথা, কিন্তু বৃন্দাবন, মথুরা, রাধাকুন্ড, মধ‍্যপ্রদেশ, মহারাষ্টে এমন মহোৎসব হয়। গতবছরের ন‍্যয় এই দ্বিতীয়বার পশ্চিমবঙ্গের মালদা জেলার বুলবুলচন্ডীতে অভুতপূর্ব আম মহোৎসব হতে দেখা গেল। বর্ষণমুখর প্রতিকূল পরিস্থিতিতে ভক্তবৃন্দের অসীম আগ্রহে শ্রীশ্রীরাধামদনমোহন জিউ মন্দিরে এমনটি হয়েছে বলে জানা গেছে।

     মন্দিরের কর্মকর্তা প্রভুপাদ শ্রীল গৌতম গোস্বামী মহোদয় জানিয়েছেন, আমাদের পরম করুণাময় পতিত পাবন অবতার শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু জ‍্যৈষ্ঠ মাসের সংক্রান্তিতে রামকেলিতে পদার্পণ করেন এবং ভক্তদের প্রদেয় মালদা জেলার সুপ্রসিদ্ধ সুমিষ্ট আম সেবা করেন। সেই মহিমান্বিত দিনকে স্মৃতিচারণা করে আজ বুধবার আমাদের গুরুপাট বুলবুলচন্ডীর শ্রীশ্রীরাধামদনমোহন মন্দিরে এই উৎসবের আয়োজন করেছি। 

আমরা অন‍্যান‍্য প্রদেশে এমন অনুষ্ঠানের কথা শুনেছি ও দেখেছি। কিছু একনিষ্ঠ ভক্তদের অফুরন্ত দিবারাত্রি প্রচেষ্টায় এমন অভুতপূর্ব সুন্দর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা সম্ভব হয়েছে। বিভিন্ন প্রজাতির আম দিয়ে আমাদের মন্দির প্রাঙ্গণে শ্রীশ্রীরাধামদনমোহন সুন্দর ভাবে সেজেছেন। বৃন্দাবন, রাধাকুন্ডে এমন অনুষ্ঠান প্রতিবছরই হয়ে থাকে। আমাদের স্থানীয় ও বহিরাগত ভক্তরা যাতে এমন সৌন্দর্য দর্শন করে আনন্দ উপভোগ করতে পারে এজন্যই এই আয়োজন। প্রায় তিন কুইন্ট‍্যালের চেয়েও বেশী আম জোগাড় করা হয়েছে এই মহোৎসবকে সর্বাঙ্গীন সুন্দর করে ফুটিয়ে তোলার জন্য।

 মন্দিরের একনিষ্ঠ ভক্ত মদন ভৌমিক জানিয়েছেন আমরা বেশ কিছুদিন ধরেই এমন একটি সেবামূলক অনুষ্ঠানের মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে চলছিলাম। আমাদের মনের আকাঙ্ক্ষা ছিল অন‍্যান‍্য জায়গায় অনুষ্ঠিত হয় আম মহোৎসব সেটা আমাদের মন্দিরে করা যায় কি না? ল‍্যাংড়া, ফজলি, হিমসাগর, গোপালভোগ, লক্ষ্মণভোগ, আম্রপালি, চৌষা, রসপুরি, মল্লিকা ইত‍্যাদি প্রায় নয় প্রকার আম দিয়ে সমগ্র মন্দির প্রাঙ্গণ ও শ্রীবিগ্রহ সাজানো হয়েছে। অবশেষে আজ বুধবার বৈকাল পাঁচটায়  রাধামদনমোহনের আম মহোৎসব ভক্তদের দর্শনের জন‍্য খুলে দেওয়া হয়েছে। 

বহিরাগত শতাধিক ভক্ত মন্দিরে এসেছেন এই উৎসবকে চাক্ষুষ দর্শনের জন‍্য। তবে গুরুপাটের অধিকাংশ বহিরাগত ভক্তবৃন্দ ফেসবুক লাইভ অনুষ্ঠানে দর্শন করেছেন। মন্দির প্রাঙ্গণে সমাগম ভক্তরা প্রশাসনিক বিধিনিষেধ মেনে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে দর্শন করছেন। সন্ধ‍্যারতির পর প্রসাদ হিসেবে ভক্তদের এই সমস্ত আম বিতরণ করা হবে।

মহোৎসব দর্শন করতে আসা তন্ময় বিশ্বাস বলেন, এমন অভুতপূর্ব সৌন্দর্য আগে অন্য কোথাও দর্শন করিনি। এই আম মহোৎসবের কথা শুনে আমি গাজোল থেকে ছুটে এসেছি দর্শনের জন‍্য। এবার  রাধামদনমোহনকে এমনভাবে সাজানো যায় এই প্রথম দেখলাম। অবিশ্বাস্য হলেও 100%  সত্যি ঘটনা দর্শন করে আমরা অভিভূত। আমাদের মন্দিরের প্রভুপাদ শ্রী গৌতম গোস্বামী মহারাজের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এমন সুন্দর অভিনব দর্শন করে আমাদের চোখ জুড়িয়ে গেল।

বালুরঘাট থেকে আগত পার্থ বসাক বলেন, গতবছর থেকে এই আম উৎসব আমাদের গুরুপাটে পালিত হয়ে আসছে। আমাদের শ্রীগুরুদেব প্রভুপাদ শ্রী গৌতম গোস্বামী প্রভুর নিরলস প্রচেষ্টায় এমন অভুতপূর্ব আম দিয়ে সাজানো এই প্রথম আমি দর্শন করলাম। ইতিপূর্বে কোথাও এমন অপূর্ব সৌন্দর্য্য দর্শনের সৌভাগ্য আমার হয়নি। আমরা চাই প্রতিবছরই এমন রুচিপূর্ণ মহোৎসব শ্রীগুরুপাটে অনুষ্ঠিত হোক। এই মহোৎসবে সাক্ষী হবার জন্য দূরদূরান্ত থেকে শতাধিক ভক্ত মন্দির প্রাঙ্গণে এসেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *