বিজেপি প্রার্থীর সমর্থনে শামুকতলায় জনসভা শুভেন্দু অধিকারীর

বাবুল সরকার, শামুকতলা, ৮ এপ্রিলঃ বৃহস্পতিবার চতুর্থ দফার নির্বাচনী প্রচারের শেষ দিনে কুমারগ্রাম বিধানসভা এলাকায় জনসভা করলেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী।

এদিন দুপুরে আলিপুরদুয়ার – ২ নম্বর ব্লকের শামুকতলায় অনুষ্ঠিত হয় ওই জনসভা। দুপুর ১টা নাগাদ হেলিকপ্টারে চেপে সভাস্থল সংলগ্ন স্থানে নামেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

এদিনের জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে শুভেন্দুবাবু বলেন, ‘রাজ্যে একমাত্র বিজেপি সরকার তৈরি হলেই চা-বাগানের সমস্যাগুলির পাকাপাকি সমাধান সম্ভব হবে। বাগানের জমি গুলির লিজ কেন্দ্রীয় সরকারের হাতে। তাই কেন্দ্রে-রাজ্যে একই সরকার থাকলে চা-বাগানের জমির পাট্টা দিতে সুবিধা হবে। বিজেপি ক্ষমতায় এলে চা শ্রমিকদের ৩৫০ টাকা দৈনিক মজুরি দেওয়া হবে। তাই রাজ্যে বিজেপিকে ক্ষমতায় আনতে হবে।’

এদিনের জনসভায় উপস্থিত ছিলেন বিজেপি’র জেলা সহ-সভাপতি বিপ্লব সরকার, দলের জেলা সম্পাদক বিনোদ মিঞ্জ, অর্জুন দেবনাথ, প্রাক্তন সাংসদ দশরথ তির্কি, সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া মোহন শর্মা, কুমারগ্রাম কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী মনোজকুমার ওরাওঁ সহ অন্যান্য নেতৃত্বরা। জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে তফশিলি জাতি ও উপজাতি সম্প্রদায়ের মানুষদের মন জয়ার চেষ্টা করেন শুভেন্দু অধিকারী।

তিনি বলেন, ‘২০০৩ সালে সাঁওতাল ভাষাকে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী সংবিধানের অষ্টম তফশিলে অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন। সাঁওতালি ভাষাকে কেউ যদি মর্যাদা দিয়ে থাকে, তাহলে বিজেপি দিয়েছে, অন্য কেউ দেয়নি। রাজবংশী, নমঃশুদ্রদের স্বার্থ কেউ যদি রক্ষা করতে পারে সেটা হল ভারতীয় জনতা পার্টি।’ নন্দীগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রে তিনি ইতিমধ্যেই জয়লাভ করেছেন বলে দাবি করে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ‘ওখানে মাননীয়া ৭০ হাজার ভোটে হেরে গিয়েছেন।’

বিভিন্ন বিষয় নিয়ে জনসভায় তৃণমূলের সমালোচনা করতে থাকেন এই বিজেপি নেতা। কুমারগ্রামের প্রার্থী মনোজকুমার ওরাওঁকে জয়ী করে বিধানসভায় পাঠানোর জন্য আবেদন জানান রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *